অপরাধ

বরিশালে অনৈতিকভাবে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন

  প্রতিনিধি ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ , ১২:১৭:৩১ প্রিন্ট সংস্করণ

মামুনুর রশীদ নোমানী : সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী প্রধান শিক্ষক, সহকারী প্রধান শিক্ষক অনুপস্থিতিতে জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করবেন। কিন্তু সরকারী এই পরিপত্রের নির্দেশ অমান্য করে যে বরিশাল সদর উপজেলার জাগুয়া ইউনিয়নের চন্ডিপুর গ্ৰামে অবস্থিত মহাম্মদ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক থাকার পরেও সহকারী শিক্ষককে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দিয়ে চলছে স্কুলের কার্যক্রম। এ নিয়ে বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষক, কর্মচারী, শিক্ষার্থীদের অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। এবিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বিভাগীয় মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দেয়ার প্রস্তুতি চলছে জানান একাধিক শিক্ষার্থীদের অভিভাবক। জানা গেছে, ২০১৪ সালে মহাম্মদ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের তৎকালীন প্রধান শিক্ষক রুস্তম আলী ফরাজী অবসর গ্রহণ করেন। এরপরে সহকারী প্রধান শিক্ষক আজাদ হোসেন কে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়। কিন্তু বছর পার না হতেই আজাদ হোসেন অন্য একটি বিদ্যালয়ের চলে যায়। এদিকে সরকারি পরিপত্র অনুযায়ী প্রধান শিক্ষকের পদ শূন্য হলে কিংবা প্রধান শিক্ষক কোনও কারণে অনুপস্থিত থাকলে প্রতিষ্ঠানের সহকারী প্রধান শিক্ষক প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করবেন আর সহকারী প্রধান শিক্ষক না থাকলে জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব দিতে হবে। কিন্তু এই বিদ্যালয়টিতে জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক ইউসুফ আলী বাদ দিয়ে তৎকালীন সময়ের ম্যানেজিং কমিটি সরকারি পরিপত্রের অমান্য করে বিধিবহির্ভূতভাবে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফারুক হোসেন কে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দিয়েছেন। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব থাকায় জড়িয়ে পড়ছেন নানা ধরনের দুর্নীতিতে। এমনকি তার বিরুদ্ধে সরকারী বই বিতরণে অর্থ আদায়ের অভিযোগে পত্রিকার শিরোনাম হয়েছেন। এদিকে গত কয়েক মাস আগে এনটিআরসি থেকে বিদ্যালয়ে তিনজন সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়। নতুন এই শিক্ষকদের বিলের জন্য বরিশাল সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে কাগজপত্র পাঠালে তারা নিয়ম অমান্য করে সব কাগজপত্র সঠিকভাবে যাচাই না করে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে হস্তান্তর করেন। অপরদিকে একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, আঞ্চলিক মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র যাচাই-বাছাই কালে দেখতে পান যে জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক ইউসুফ আলী কে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব না দিয়ে সহকারী শিক্ষক ফারুক হোসেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এরপরে সে সংশ্লিষ্ট কাগজপত্রের অনুমোদন দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন এবং সরকারী নিয়মানুযায়ী জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক ইউসুফ আলী কে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব দিতে নির্দেশ দিয়েছেন।

কিন্তু রহস্যজনক কারণে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ফারুক হোসেন জ্যেষ্ঠতম সহকারী ইউসুফ আলী কে দায়িত্ব দিতে নানা ধরনের টালবাহানা করে করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থীদের অভিভাবক জানান, ফারুক হোসেন দীর্ঘদিন যাবৎ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে থাকায় বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ছেন এবং সঠিকভাবে বিদ্যালয়ের আয়- ব্যায়ের হিসেব দিতে পারবেন না বিধায় ইউসুফ আলী কে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দিতে টালবাহানা শুরু করেছেন। জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক দায়িত্ব না দিয়ে দায়িত্ব পালন করার বিষয়ে জানতে চাইলে বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ফারুক হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে জানান আমিও এই দায়িত্ব থাকতে চাইনা। কিন্তু ম্যানেজিং কমিটি আমাকে বাদ দেয় না কেন।

সরকারী নির্দেশ অমান্য করার বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বলেন, ফারুক হোসেন কে যখন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে, তখন আমি ম্যানেজিং কমিটিতে ছিলাম না। কয়েকমাস আগে আমি ম্যানেজিং কমিটি (এডহক কমিটি) সভাপতির দায়িত্ব পাই। যতদ্রুত সম্ভব সরকারি বিধি মোতাবেক জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক কে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেয়া হবে। বরিশাল সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বীথিকা সরকার জানান, এ ব্যাপারে আমি অবগত রয়েছি।সরকারী নির্দেশ অমান্য করার সুযোগ নেই। যতদ্রুত সম্ভব নিয়মানুযায়ী জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দিতে হবে। বরিশাল জেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জানান, এভাবে দায়িত্ব অর্পণ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার সুস্পষ্ট লঙ্ঘন । কেউ সরকারী সিদ্ধান্ত অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই বিষয়ে আমি খোজ নিয়ে দেখবো। বরিশালের আঞ্চলিক মাধ্যমিক শিক্ষা উপ- পরিচালক মো: আনোয়ার হোসেনকে মুঠোফোনে কল দিয়েও সংযোগ পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email

আরও খবর

Sponsered content

Verified by MonsterInsights