জাতীয়

ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে আবারো চালু হলো রোটেশন প্রথা

  প্রতিনিধি ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ , ১২:০৮:৫৮ প্রিন্ট সংস্করণ

নিজস্ব প্রতিবেদক ।।
পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর ঢাকা-বরিশাল নৌপথে চলাচলকারী লঞ্চগুলোতে যাত্রী সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে কমে যাওয়ার পর লঞ্চ মালিকেরা টিকে থাকার জন্য লড়াই করছিলেন। এরপর কেবিন ও ডেকের ভাড়া কমিয়ে দিয়ে যাত্রীদের ফেরাতে চেষ্টা করলে কিছু ঘাটতি পূরণ হয়েছিল। কিন্তু সম্প্রতি জ্বালানি তেলের মূল্য বেড়ে যাওয়ায় অবস্থা আরও জটিল আকার ধারণ করে। যাত্রী থাকলেও ব্যয় মিটিয়ে লাভের মুখ দেখা দুরুহ হয়ে পড়ে। এমন পরিস্থিতিতে এই নৌপথে লঞ্চের সংখ্যা কমিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন লঞ্চ মালিকেরা। লঞ্চ মালিকদের সংগঠন অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল (যাপ) সংস্থা ঢাকায় এক বৈঠকে মঙ্গলবার সকালে এই সিদ্ধান্ত নেয়। ঢাকার পুরান পল্টনের দারুসসালাম আর্কেডের পঞ্চম তরায় সংস্থার প্রধান কার্যালয়ের মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০ টায় অনুষ্ঠিত এই সভায় সভাপতিত্ব করেন সংস্থার চেয়ারম্যান মাহবুব উদ্দিন আহমদ। এতে উপস্থিত ছিলেন, সংস্থার জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান মো. বদিউজ্জমান, ঢাকা নদী বন্দর নৌ চলাচল ব্যবস্থাপনা কমিটির আহবায়ক মো. মামুন অর রশিদ। সভায় সংস্থার অন্য সদস্য এবং এ নৌপথে চলাচলকারী লঞ্চ মালিকেরা উপস্থিত ছিলেন। সভা সূত্র জানায়, উদ্ভূত পরিস্থিতি বিবেচনায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, বরিশাল-ঢাকা নৌপথে এখন থেকে প্রতিদিন ঢাকার সদরঘাট নদী বন্দর থেকে তিনটি এবং বরিশাল নদী বন্দর প্রান্ত থেকে তিনটি লঞ্চ চলাচল করবে। এজন্য বরিশাল-ঢাকা রুটে চলাচকারী ১৮ টি লঞ্চকে ছয়টি টি গ্রুপে ভাগ করে এই রোটেশন প্রথা চালু করা হবে। সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া লঞ্চগুলো সকাল ৫ টার আগে বরিশাল নদী বন্দরে পৌছাতে হবে এবং বরিশাল নদী বন্দর থেকে ছেড়ে যাওয়া লঞ্চগুলো সকাল ৬ টার আগে ঢাকা সদরঘাট নদী বন্দরে পৌছাতে হবে। পথিমধ্যে কোনো লঞ্চ অপর কোনো লঞ্চকে ওভারটেক করতে পারবে না। এসব সিদ্ধান্তে একমত পোষণ করে ১৮টি লঞ্চের ১০ জন মালিক যৌথ স্বাক্ষর করেছেন। ঢাকা- বরিশাল নৌ পথে প্রতিদিন নয়টি লঞ্চ চলাচলের অনুমতি থাকলেও এতোদিন ৬ থেকে ৭টি করে লঞ্চ চলাচল করতো। পদ্মা সেতু চালুর ফলে যাত্রী কমে যাওয়ায় এবং এরপর জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির ফলে ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় অজুহাতে এবার লঞ্চের সংখ্যা আরও কমিয়ে নতুন রোটেশন প্রথা চালু করা হলো।

Print Friendly, PDF & Email

আরও খবর

Sponsered content

Verified by MonsterInsights