জাতীয়

ভেজাল প্রসাধন ব্যবহারে বাড়ছে রোগের ঝুঁকি

  প্রতিনিধি ১২ জুলাই ২০২২ , ১:০৯:০৯ প্রিন্ট সংস্করণ

মোরশেদা ইয়াসমিন পিউ :
ভেজাল প্রসাধনী ব্যবহার বাড়াচ্ছে চর্মরোগের ঝুঁকি। আর এসব ভেজাল প্রসাধনীর সঙ্গে পরিচয় ঘটছে ঘরে বসেই। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক খুললেই বিভিন্ন ধরনের রং ফরসা করা ক্রিম, পাউডার, সাবান, লোশন, জেল সব কিছুতেই থাকছে ত্বক ফরসা করার উপকরণ। যা ত্বক উজ্জ্বল করা ও সৌন্দর্য বাড়ানোর কাজে ব্যবহৃত হয়।

ফেসবুক লাইফে এসে কেউ বা বলছেন, সাত দিন ব্যবহারে গায়ের রং ফরসা হয়ে যাবে, কেউ বলছেন পাঁচ দিনে। কেউ বা আবার বলছেন এক থেকে তিন দিনেই মুখের রং ধবধবে ফরসা হয়ে যাবে। কেউ বা আবার বিক্রি করছেন রং ফরসা করা কফি ও জুস। যা প্রতিদিন খেলে গায়ের রং ফরসা হবে বলেও প্রলোভন দেওয়া হয়। এতে আসক্ত হয়ে লাখ লাখ নারী টাকা খরচ করে এসব প্রসাধনী ব্যবহার করে প্রতারিত হচ্ছে। তাৎক্ষণিক ফরসা হলেও দীর্ঘ মেয়াদে এসব পণ্য ব্যবহারের ফলে, ত্বকের দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতিসহ ত্বকে দেখা দিচ্ছে নানা রোগের সংক্রমণ বলে জানান সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা।

মিরপুরের তিথি, উত্তরার শায়লা ও মোহাম্মদপুরের টুম্পা এসব নকল প্রসাধনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে ধরে বলেন, ‘একটা গোলাপি সাবান কিনেছি ১ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে। সেটি ব্যবহারে গ্লাসের মতো ত্বক হবে বলেছিলেন বিক্রেতা। কিন্তু সেই সাবান এক মাস ব্যবহার করেছি। সঙ্গে জেল ও নাইটক্রিম নিয়েছি, সব মিলে দাম পড়েছে ৫ হাজার টাকার বেশি। কিন্তু দুই মাস বেশ পরিষ্কার ছিল ত্বক। এরপর ত্বকে চুলকানি শুরু হয়, এরপর ওঠে লাল র‍্যাশ। সেই র‍্যাশ চুলকানোর ফলে কালো হয়ে ঘা হয়ে যায়। এখন ত্বকের যাচ্ছে তাই অবস্থা। যাদের কাছ থেকে পণ্য কিনে ব্যবহার করেছিলাম তারা বলছেন, ‘আপনি আমাদের কথামতো পণ্য ব্যবহার করেননি, ফলে এমনটা হয়েছে।’ এখন তারা চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে বলেন।সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা জানান, রং ফরসাকারী ক্রিম, ব্রণ বা মেছতার ক্রিম মেখে ত্বকের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে তাদের কাছে এখন অনেক রোগী চিকিৎসা নিতে আসছেন। সারা পৃথিবীতে কোথাও রং ফরসাকারী ক্রিম ব্যবহার করে স্থায়ীভাবে ফরসা হওয়ার উদাহরণ নেই। অথচ অনলাইনে নামে-বেনামে বিভিন্ন পেজ খুলে তাদের পণ্য ব্যবহারে অনেক ভালো ফল পাওয়ার দাবি করে পণ্য বিক্রি করছে। ধারণা করা হচ্ছে ভেজাল এসব প্রসাধনীতে স্টেরয়েডের মতো পদার্থ ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলে মুখের ত্বক পাতলা হয়ে যায়, ত্বকের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়, ত্বকে বিভিন্ন ধরনের ইনফেকশন বা সংক্রমণ হয়। এ ধরনের ক্রিম দীর্ঘদিন ব্যবহারে ত্বকের ক্ষতি হয়। পাশাপাশি ত্বকের ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকিও বেড়ে যায়। দীর্ঘ মেয়াদে এসব পণ্য ব্যবহারে ত্বকের ক্যানসার ও গর্ভজাত সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কারণ ভেজাল এসব পণ্যে থাকে মার্কারি ও পারদজাতীয় বিভিন্ন উপাদান। পারদজাতীয় ভারী ধাতু শরীর থেকে বের হতে পারে না। শরীরে দীর্ঘ সময় অবস্থানের ফলে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তৈরি হয়। পারদ ত্বকের ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। এছাড়া হাইড্রোকুইনন ক্রিম ত্বকের স্বাভাবিক রং পরিবর্তন করে দেয়।

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ড. জাহিদ হোসেন  বলেন, তাদের কাছে আগত রোগী বিশেষ করে যারা কথিত রং ফরসাকারী ঐ সব প্রসাধনী ব্যবহার করে নানা সমস্যায় ভুগছেন তাদের সংখ্যা বেড়ে গেছে। যারা আসছেন তাদের বেশির ভাগেরই ত্বক এত পাতলা হয়ে গেছে যে, ভেতরের শিরা-উপশিরা দেখা যায়। শরীরের চেয়ে মুখের রং বেশি ফরসা। এই রং ফরসা করা ক্রিম ব্যবহার বন্ধ করে দিলেই আগের চেয়ে বেশি কালো হয়ে যাচ্ছে ত্বক। দেখা দিচ্ছে ব্রণ, এলার্জিসহ নানা সমস্যা। কোনো ফেসওয়াস লাগাতে পারছে না, ত্বক পাতলা হয়ে যাওয়ার কারণে রোদে সহজে ত্বক পুড়ে যাচ্ছে। দেখা যাচ্ছে এসব ক্রিম মেখে বিপদে পড়ছেন বিবাহযোগ্য মেয়েরা। তারাই বেশি আসছেন চিকিৎসা নিতে। ঐ সব রং ফরসা করা প্রসাধনীতে হাইড্রোকুইনন অ্যাসিড থাকে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ। যা ত্বকের জন্যে খুবই ক্ষতিকর। বিশেষজ্ঞ এই চিকিৎসক আরো জানান, অনেক বিউটি পার্লারে গ্লুটাথিয়ন ইনজেকশন পুশ করা হচ্ছে। যা একজন চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া দেওয়া উচিত নয়। লেজার করানো হচ্ছে। গ্লুটাথিয়ন ইনজেকশন দিলে ত্বক কিছুটা টানটান হয়, কিছুটা গ্লো আসে। তবে অবশ্যই সেটা ত্বকের রঙের আমূল কোনো পরিবর্তন করে না ।যশোর ল্যাবএইড ডায়াগনস্টিকের কনসালট্যান্ট চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মুনিরা ফেরদৌস  বলেন, অনেকে ব্যবসার জন্য এসব ক্রিম বিক্রি করছেন। তবে খারাপ ক্রিমের পাশাপাশি অনেক ক্রিম ভালোও আছে। কিন্তু যেসব ক্রিমে স্টেরয়েড থাকে, সেসব ক্রিম তাৎক্ষণিক রং খুব ফরসা করে, কিন্তু দীর্ঘমেয়াদি এটা ব্যবহারের পর যখন ক্রিমের ব্যবহার ছেড়ে দেন, তখন দেখা যায় ত্বকে একটা গ্রামেটিক চেঞ্জ আসে এবং ত্বককে খুব বাজেভাবে ক্ষতি করে ফেলে। রক্তনালি দেখা যায়, ক্রিমে ব্রণ হয়, অতিরিক্ত লোম দেখা দেয়, এ ধরনের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। এ ধরনের সমস্যা নিয়ে প্রচুর রোগী আসছেন। বিশেষজ্ঞ এই চিকিৎসক বলেন, যদি ত্বক উজ্জ্বল করতেই হয়, তাহলে অবশ্যই ত্বক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ক্রিম ব্যবহার করা যেতে পারে। তাহলে এ ধরনের সমস্যায় পড়তে হবে না।

Print Friendly, PDF & Email

আরও খবর

Sponsered content