১৩ই আগস্ট, ২০২০ ইং, বৃহস্পতিবার

শিরোনাম
সংবাদ প্রকাশের পর…….. বরিশালে অর্থনীতির শিক্ষক ইংরেজির প্রধান পরীক্ষক পদ থেকে বহিস্কার বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অর্থনীতির শিক্ষক বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের ইংরেজির প্রধান পরীক্ষক! মুজিব থেকে বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠায় রেণুর প্রেরণাঃ ‘কারাগারের রোজনামচা’য় বঙ্গমাতা আলহাজ্ব মোঃ আলাউদ্দিন স্মরনে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত মির্জাগঞ্জে আওয়ামী লীগের অফিস ভাংচুর : গ্রেফতার ৩ শেখ কামালের ৭১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বরিশাল সদর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপণ চাল চুরির ঘটনায় ইউপি সদস্যসহ ২ জনের বিরুদ্ধে মামলা উজিরপুরে নিখোঁজের ৩ দিন পর ছাএের লাশ উদ্ধার বরিশালে নতুন করে ২৮ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ১

বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজে বেসরকারি বেতন : ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা

আপডেট: জুলাই ১১, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

* স্কুলের বেতনের জন্য অভিভাবকদের ফোন ও ম্যাসেজ।
*অধ্যক্ষকে শোকজ।
*পরিচালনা পরিষদকে এড়িয়ে চলেন অধ্যক্ষ।
*অধ্যক্ষের স্বেচ্চাচারিতায় ধ্বংসের পথে বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ।
*সরকারি নিয়মে বেতন দেয়ার দাবি অভিভাবাকদের।

স্টাফ রিপোর্টার : বরিশালের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও বেতনের জন্য শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদেরকে ফোন ও ম্যাসেজ প্রদান করা হচ্ছে বলে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। বেতন পরিশোধের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ওই প্রতিষ্ঠানটি থেকে। প্রতিষ্ঠানটি হলো বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ।

এদিকে করোনাভাইরাস আতঙ্কে লকডাউনে থাকা অধিকাংশ মধ্যবিত্ত ও গরিব শ্রেণির মানুষ যখন সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে, ঠিক তখনই সন্তানের বেতনের জন্য স্কুল থেকে ফোন ও ম্যাসেজ দিয়ে চাপাচাপি করায় ক্ষোভ দেখা দিয়েছে অভিভাবকদের মাঝে। প্রতিষ্ঠানটির এমন আচরণের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ছড়াতে শুরু করেছে। অভিভাবকরা প্রতিষ্ঠানটির এ ধরনের কর্মকান্ডে ক্ষোভ প্রকাশ করে নানা মন্তব্য করেন। এ দিকে প্রতিষ্ঠানটির ফান্ডে পর্যাপ্ত টাকা থাকা সত্ত্বেও মে থেকে আমন্ত্রিত ২১ শিক্ষক ও কর্মচারিদের বেতন বন্ধ করে দিয়েছে। এছাড়া মে মাসের মুল বেতন দেয়া হয়েছে ৪০ সরকারি শিক্ষক ও কর্মচারিদেরকে।
প্রতিষ্ঠানটি মার্চ থেকে বন্ধ থাকলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাসিক বেতন ও অন্যান্য ফির জন্য শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের কাছে বারবার ফোন ও ম্যাসেজ প্রদান করায় ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা। সুত্র জানিয়েছে চলতি মাসে এডহক হয়ে গেলে সরকারি অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মত ফি নিতে হবে তাই এখন আদায় না করা হলে পরে আর আদায় করতে পারবেনা এমন মানসিকতা থেকেই অভিভাবকদের চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে মাসিক বেতন আদায়ের জন্য।

এদিকে ২০১৭ সালে ঘোষনার পরে থেকেই লালবাগ সরকারি মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজ ও শ্যামপুর সরকারি মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজ সরকারি নিয়মানুযায়ী শিক্ষার্থীদের থেকে শেষন ফি ,মাসিক বেতনসহ অন্যান্য ফি আদায় করে সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে।

মিজানুর রহমান নামের একজন অভিভাবক বলেন, ‘অফিস বন্ধ হয়ে যায়। এরপর থেকে আমাদের বেতন বন্ধ হয়ে আছে। এই অবস্থায় সংসার চালানোয় দায় হয়ে পড়েছে। এরই মধ্যে স্কুল থেকে বেতনের জন্য ফোন করে চাপাচাপি করা হচ্ছে। এই অবস্থায় সংসার চালাব নাকি সন্তানের স্কুলের বেতন দিব?’
অভিভাবকরা সরকারি নিয়মে শিক্ষার্থীদের বেতন দেয়ার দাবি করেছেন। তারা বলেন বরিশালের জিলা স্কুলে যেভাবে বেতন নেয় তার বেশী কেন আমরা বেশী দিব।

সোহরাফ নামে একজন অভিভাবক বললেন, বন্ধ স্কুলে ম্যাসেজ করে মার্চ মাস থেকে জুন পর্যন্ত পুরো চার মাসের বেতন একসঙ্গে চাওয়া হচ্ছে। বিষয়টা অভিভাবকদের জন্য বিব্রতকর! গত চার মাস ধরে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বন্ধ রয়েছে। সেখানে ম্যাসেজ করে টাকা চাওয়া কতটা যুক্তিযুক্ত তা ভাববার বিষয়। গত জানুয়ারিতে সব স্কুলে ভর্তিতে সেশন ফির নামে মোটা অঙ্কের টাকা নেওয়া হয়েছে। তারপর মাত্র দু মাস স্কুল চলার পরই বন্ধ হয়েছে। পরবর্তীতে কবে স্কুল খুলবে সেটাও অনিশ্চিত। সেখানে স্কুল কর্তৃপক্ষের বেতনের ভাবনা আসে কোথা থেকে? অপরদিকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে স্কুল বন্ধ থাকার কারণে স্কুলের অন্যান্য খরচও তেমন লাগেনি। বিদ্যুৎ, পানি, চক, ডাস্টার কিংবা কাগজ-কলমে কোনো খরচ হয়নি। সেখানে পুরো বেতনের প্রসঙ্গ আসে কিভাবে? বিষয়টি স্কুল কর্তৃপক্ষসহ সবার ভাববার বিষয়।

পরিচালনা পরিষদকে এড়িয়ে চলেন অধ্যক্ষ :

এদিকে প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ পরিচালনা পর্ষদকে এড়িয়ে নিজেই সব সিদ্ধান্ত একা নিচ্ছেন। পরিচালনা পর্ষদের সাবেক সভাপতি তৎকালীন বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার এর কোন আদেশ বর্তমান অধ্যক্ষ মানে না। নিজ ইচ্ছামত পরিচালনা করছেন প্রতিষ্ঠানটি। সাবেক বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার একটি আদেশ দিলে অধ্যক্ষ সে আদেশ না মানায় বর্তমান পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি অধ্যক্ষকে শোকজ করেছেন। সে বিষয়টি বাস্তবায়ন না করার জন্য ৯ জুলাইয়ের মধ্য ব্যাখ্যা দেয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়। অধ্যক্ষ ইতিমধ্য অসত্য তথ্য দিয়ে একটা লিখিত ব্যাখ্যা প্রদান করেছেন।

শিক্ষকদের বেতন ভাতা বন্ধ
ফান্ডে পর্যাপ্ত টাকা থাকার পরেও :

বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষের স্বেচ্চাচারিতা খামখেয়ালিপনা ও একক একটি অমানবিক আদেশে প্রতিষ্ঠানটির ২১ শিক্ষক,কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মে মাস থেকে বেতন বন্ধ। অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে তহবিল তসরুপ,শিক্ষামন্ত্রনালয়ের আদেশ অমান্যসহ ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ শিক্ষকদের।

মে মাস থেকে বেতন বন্ধ হওয়ায় ২১ শিক্ষক ও কর্মচারিদের পরিবারে চরম অনিশ্চয়তা ও হতাশা দেখা দিয়েছে ।
১৭ মে’২০২০ তারিখ বেতন বন্ধের অধ্যক্ষের অবৈধ আদেশ প্রত্যাহারের জন্য ২১ জন খন্ডকালীন শিক্ষক ও কর্মচারীরা পৃথক পৃথক আবেদন করেছেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও বরিশালের বিভাগীয় কমিশনারের নিকট। ১৭ মে বৈশ্বিক মহামারি করোনা চলাকালীন সময়ে নিয়মিত বেতন প্রদান শিরোনামে তারা আবেদন করেন।

এদিকে ১১ জুন বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ৪০ জন স্থায়ী শিক্ষক ,কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে বেতন ভাতা সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী আত্তীকরন না হওয়া পর্যন্ত অব্যাহত রাখার শিরোনামে আবেদন করেন।
আবেদনে এ ৪০ জন শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীগন উল্লেখ করেন মে’২০২০ মাসের বেতন ভাতা জুনের ১০ তারিখ পর্যন্ত পাইনি। এ বিষয়ে অধ্যক্ষের সাথে ৩ জুন আলোচনা করলে তিনি জানান কোন বেতন দেয়া হবেনা। কারন হিসিবে তিনি বলেন ফান্ডে কোন টাকা নাই। আবার বলেন,সরকার শুধু এপ্রিল ও মে মাসের মুল বেতন দিতে বলেছে। কলেজের প্রায় ৪০ লাখ টাকার ফান্ড ও তিন কোটি টাকার এফডিআর রয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের যে নির্দেশনা রয়েছে তা সদ্য বা নতুন সরকারিকরনকৃত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নন এমপিও শিক্ষকদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। আমাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। আবেদনে আরো উল্লেখ করা হয় আত্তীকরন না হওয়া পর্যন্ত পুর্বের ন্যায় বেতন ভাতা আমাদের অব্যাহত থাকবে। নিয়মিত বেতন ভাতা পরিচালনা পর্ষদ অব্যাহত রাখবেন এ মর্মে নির্দেশনা রয়েছে।
৪০ জন আবেদনকারী অধ্যক্ষ প্রসঙ্গে আবেদনে উল্লেখ করেন,পরিতাপের বিষয় এই করোনা দুর্যোগ মুহুর্তে প্রতিষ্ঠানটির প্রেষনে নিয়োজিত অধ্যক্ষ করোনার অজুহাতে সু কৌশলে পরিচালনা পর্ষদের কোন সভা আহবান না করে একক সিদ্ধান্তে বেতন দেওয়ার দীর্ঘ সূত্রতা সৃষ্টি করছে।অথচ অধ্যক্ষ তার মুল বেতনসহ অন্যান্য ভাতাদি কলেজ ফান্ড থেকে গ্রহন করছেন। তারা আবেদনে আরো উল্লেখ করেন অধ্যক্ষ যোগদানের তারিখ থেকে শতকরা বিশ ভাগ প্রেষন ভাতা গ্রহন করে আসছেন যা মন্ত্রনালয়ের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। শিক্ষক ও কর্মচারিরা বেতন ভাতা না পাওয়ায় তারা বেতন বন্ধের আদেশকে অন্যায় ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে সভাপতির নিকট মে মাসের বেতন ও এডহক না হওয়া পর্যন্ত নিয়মিত বেতন ভাতা অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানান।

মে মাসের বেতন জুন মাসের ২২ তারিখ সরকারি ৪০ জন শিক্ষক ও কর্মচারিদের আংশিক বেতন প্রদান করা হলেও ২১ জন আমন্ত্রিত শিক্ষক ও কর্মচারিদের বেতন প্রদান করা হয়নি।প্রতিষ্ঠানটিতে স্থায়ীরা ক্লাশ কম নেন। খন্ডকালীন ও আমন্ত্রিত শিক্ষকরা অতিরিক্ত ক্লাশ নেন। অথচ এই করোনার মহামারিতে বেতন বন্ধের সিদ্ধান্ত দিয়েছেন অধ্যক্ষ যা গভর্নিং বডি বা একাডেমিক কাউন্সিলের কেউ কিছু জানেন না।

এদিকে অধ্যক্ষ নিজের মে ,জুন ও ঈদের বোনাসসহ অন্যান্য বেতন প্রস্তুত করে পরিচারনা পর্ষদের সভাপতি, বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে প্রেরন করেছেন।

খন্ডকালীন শিক্ষকদের বেতন বন্ধের ব্যাপারে সহকারি শিক্ষক (গনিত) মোঃ আজিম উদ্দিন জানান,এপ্রিলের বেতন যখন দেয়া হয় তখন মে মাস থেকে আমাদের বেতন অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকবে বলে জানিয়ে দেয়া হয়। আমরা আমন্ত্রিত ও খন্ডকালীন শিক্ষকরা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির নিকট আবেদন করেছি নিয়মিত বেতন প্রদানের জন্য। তিনি বলেন, অধ্যক্ষের নির্দেশে প্রতিষ্ঠানটির হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা আমির হোসেন আমাদের জানিয়ে দিয়েছেন। একই কথা বললেন সহকারি শিক্ষক (গনিত) মোঃ জাকির হোসেন। তিনি বলেন আমাদের মাত্র সামান্য টাকা বেতন তা বন্ধের সিদ্ধান্তে আমরা হতবাক।

বেতন বন্ধের ব্যাপারে অফিস সহকারি মোঃ রাশেদুজ্জামান জানান, আমরা খন্ডকালীন আট কর্মচারি পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির নিকট আবেদন করেছি নিয়মিত বেতন প্রদানের জন্য। আমাদের বেতন বন্ধের সিদ্ধান্ত অমানবিক। বেতন না পেলে আমরা কিভাবে চলবো কি খাবো।

সরকারি প্রতিষ্ঠানে বেসরকারি বেতন :

বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক জানান, প্রতিষ্ঠানটি সরকারি ঘোষণা হওয়ার আগে একজন শিক্ষার্থীর যে বেতন নেওয়া হতো, সরকারি ঘোষণা হওয়ার পরও তা-ই আছে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের নিয়মিত টিফিন না দিয়েই প্রতি মাসে টিফিন বাবদ টাকা, কম্পিউটার ল্যাব খরচ এবং অজ্ঞাত অত্যাবশ্যকীয় ব্যয়ের নামে টাকা নেওয়া হচ্ছে। এসব খরচের জোগান দিতে হিমশিম খাচ্ছেন তিনি।

বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, ‘সরকারি হিসেবে কার্যকর হওয়ার পরও বেসরকারির ফি আদায় করা হচ্ছে। প্রতিষ্ঠান থেকে বলা হচ্ছে শিক্ষকরা এখনো সরকারি সুযোগ পাননি। তাদের সরকারি বেতন চালু হলে শিক্ষার্থীদের থেকে আর বাড়তি ফি নেওয়া হবে না।
কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে শিক্ষকদের যদি এরিয়ারসহ ঘোষণার দিন থেকে বেতন দেওয়া হয়, তখন কি তারা ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে নেওয়া বাড়তি টাকা ফেরত দেবেন?’

২০১৭ সালে সরকারি ঘোষনা হওয়ার পরেও এখনো শিক্ষার্থীদের মাসিক ৫৫০ টাকা হারে বেতন, প্রতিবছরের শুরুতে প্রদান করতে হচ্ছে সেশন ফি সহ উচ্চ হারে ভর্তি ফিসহ অন্যান্য ফি।

বরিশাল জেলা বাসদ সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী বলেন, মহামারী করোনার সময়ে
শিক্ষার্থীদের বেতন-ফি মওকুফ করতে হবে। এই মুহূর্তে শিক্ষার্থীদের ওপর নতুন করে বোঝা চাপানো যাবে না।শিক্ষার্থীদের কে চাপ প্রয়োগ করে বেতন আদায় দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ ব্যাপারে বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সাহিদুর রহমান মজুমদারের সাথে যোগাযোগের জন্য কলেজের টেলিফোনে কল করা হলেও রিসিভ করেন নি।

Print Friendly, PDF & Email
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশাল খবর ২৪ প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।