১৪ই আগস্ট, ২০২০ ইং, শুক্রবার

শিরোনাম
সংবাদ প্রকাশের পর…….. বরিশালে অর্থনীতির শিক্ষক ইংরেজির প্রধান পরীক্ষক পদ থেকে বহিস্কার বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অর্থনীতির শিক্ষক বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের ইংরেজির প্রধান পরীক্ষক! মুজিব থেকে বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠায় রেণুর প্রেরণাঃ ‘কারাগারের রোজনামচা’য় বঙ্গমাতা আলহাজ্ব মোঃ আলাউদ্দিন স্মরনে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত মির্জাগঞ্জে আওয়ামী লীগের অফিস ভাংচুর : গ্রেফতার ৩ শেখ কামালের ৭১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বরিশাল সদর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপণ চাল চুরির ঘটনায় ইউপি সদস্যসহ ২ জনের বিরুদ্ধে মামলা উজিরপুরে নিখোঁজের ৩ দিন পর ছাএের লাশ উদ্ধার বরিশালে নতুন করে ২৮ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ১

বরিশালে মৃত জেনেও মহিলা রোগীকে ১২ হাজার টাকার টেস্ট

আপডেট: এপ্রিল ২৮, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার : মৃত জেনেও মহিলা রোগীকে ১২ হাজার টাকার টেস্ট করতে দিল বরিশাল নগরীর একটি ক্লিনিকের চিকিৎসক। অবশেষে নগরীর শেরে বাংলা নগর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানালো এ রোগী মারা গেছে অনেক আগেই। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্ষোভে ফেটে পরেন রোগীর স্বজনরা।

জানা গেছে, বরিশাল নগরীর ব্রাউন কম্পাউন্ড রোডে রয়েল সিটি ক্লিনিকের ভুল চিকিৎসায় সোনিয়া বেগমের (২৪) নামে এক রোগী মারা যায়। সোনিয়া ঝালকাঠী সদর উপজেলার বিনয়কাঠী ইউনিয়নের বাজিতপুর গ্রামের সাইফুল ইসলামের স্ত্রী।
সোনিয়ার মা রহিমা বেগম জানান, সোনিয়ার অসহ্য পেটে ব্যথা হওয়ায় ওই ক্লিনিকের চিকিৎসক তানিয়া আক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ২৩ এপ্রিল ভর্তি করা হলে ডা. তানিয়া জানায়, জোছনার পেটের নাড়িতে প্যাচ পড়েছে। তার অপারেশন করতে হবে। এ জন্য সোমবার সকাল ৮টায় অপারেশন সময় নির্ধারণ করা হয়। ওই সময় ডা. তানিয়ার স্বামী ডা. মনিরুল আহসান ও ডা:রফিকুল বারী অপারেশন করেন।

রহিমা বেগম জানান, দুপুর ২টায় তারা আমাদের বেশকিছু টেস্ট দিয়ে জানান রোগীর অবস্থা খারাপ, আপনারা এই টেস্টগুলো তাদের ক্লিনিক থেকে করার কথা জানিয়ে,

টাকার পরিমানটা ও জানিয়ে দেয়। টেস্টে ১২ হাজার টাকা লাগবে। বিষয়টি আমাদের সন্দেহ হলে আমরা আমার মেয়ের কি অবস্থা জানালে সোনিয়াকে শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে । সেখানে কর্তব্যরত জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আমার মেয়েকে পরীক্ষা নীরিক্ষার পর বলেন- এ রোগীতো অনেক আগেই মারা গেছে। এরপর মেয়ের মরদেহ নিয়ে আমরা রয়েল সিটি হাসপাতালে আসি। বিষয়টি যেনে সেখানে পুলিশ ও উপস্থিত হয়।
এ ঘটনার বিচার দাবি করে সোনিয়ার মা জানান, তার মেয়ের মৃত্যুর জন্য দায়ি চিকিৎসক থেকে শুরু করে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবেন।

 

এ ব্যাপারে কোতোয়ালী মডেল থানার সহকারি পুলিশ কমিশনার মো. রাসেল আহমেদ বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সোনিয়ার স্বজন এবং ক্লিনিকের দায়িত্বরতদের সাথে কথা বলেছি। সোনিয়ার স্বজনদের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ করা হলে সেভাবে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 


এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য ডা. তানিয়া ও ডা. মনিরুল আহসানের মোবাইলে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তারা রিসিভ করেননি।
তবে হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী আফরোজা দাবি করেন, এই মৃত্যুর ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়। রোগী ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল। চিকিৎসা যা দেবার তারাই দিয়েছে।

গত ২০ মার্চ সোনিয়া রয়েল সিটি হাসপাতালে সিজারিয়ানের মাধ্যমে সন্তান প্রসব করেন। ওই সিজারিয়ান করেছিলেন ডা. তানিয়া। এ কারণে সমস্যা দেখা দিলে তারা আবার ডা. তানিয়ার শরণাপন্না হন।

এদিকে সোনিয়ার মরদেহ শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়েছে ময়না তদন্তের জন্য। আজ সকালে সোনিয়ার মা রহিমা বাদী হয়ে দায়ীদের বিরুদ্ধে মামলা করবেন বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য,  বরিশালের এই রয়েল সিটি হাসপাতালে  ভুল চিকিৎসায় শেখ কবির উদ্দিন (৭০) নামে এক বৃদ্ধর মৃত্যু হয়েছে ২০১৮ সালের ২৬ জুন। ভুল অপারেশনে প্রান হারান তিনি।

অপারেশন থিয়েটার থেকে বের হয়ে ওই রোগীর স্বজনদের কাছ থেকে প্রায় ৩০হাজার টাকা নেয় ডা:রফিকুল বারী।

২৬ জুন’১৮ তারিখ সন্ধ্যায় বরিশাল নগরীর ব্রাউন কম্পাউন্ডস্থ রয়েল সিটি হাসপাতালে এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় অভিযুক্ত চিকিৎসক রফিকুল বারী অপারেশন থিয়েটারে রোগীকে রেখেই হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যান। মৃত শেখ কবির উদ্দিন নগরীর সিএন্ডবি রোড সংলগ্ন কাজী পাড়া এলাকার বাসিন্দা।

কবির উদ্দিনের মেয়ে মুন্নী আক্তার, হীরা আক্তার ও ছেলে শেখ বশির উদ্দিন বলেন, ‘প্রসাবের স্থানে সমস্যা ছিল আমার বাবার। ডাক্তারী ভাষায় এই সমস্যাকে প্রসপেক্ট গ্লান বলে। সেই অনুযায়ী তাকে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসক রফিকুল বারী দুপুরে দেড়টার দিকে তাকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যায়। হঠাৎ করে ডা: রফিকুল বারী অপারেশন থিয়েটার থেকে বের হয়ে আমাদের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা নেয়। এরপর থেকেই রফিকুল বারীকে আর হাসপাতালে দেখা যায়নি। কিছুক্ষণ পর হাসাপাতালের ডিউটি চিকিৎসক তামিম আমাদের কাছে এসে বাবার মৃত্যুর বিষয়টি জানায়। ভুল চিকিৎসার বিষয়টি নিয়ে আমরা কথা বলতে গেলে আমাদের উপর চরাও হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পাচঁ লাখ টাকা দিয়ে ঘটনা মিমাংশা করেন বলে মিমাংশায় জড়িত থাকা লোকজন জানান।

 

Print Friendly, PDF & Email
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশাল খবর ২৪ প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।