২১শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং, শুক্রবার

শিরোনাম
পটুয়াখালীতে পলাতক আসামী গ্রেফতার স্বপ্ন পূরণের আশা রিপন সাহার খেয়াঘাটের ইজারা না পাওয়ার জেরে মাথায় ও মুখে আলকাতড়া (মেঠো তৈল) মেখে দেয়ার মামলায় সাবেক ইউপি সদস্য জেলহাজতে বাউফলে চার বছর ধরে দাফতরিক কাজ করছেন, বরখাস্তকৃত ব্যক্তি..! পটুয়াখালীতে লবনের মূল্য বৃদ্ধি সংক্রান্ত গুজব প্রতিরোধে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে বিশেষ মতবিনিময় সভা বঙ্গ বন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানে আওয়ামীলীগ সরকার বদ্ধ পরিকর …সাবেক চীফ হুইপ আ,স,ম ফিরোজ (এমপি) বাউফলে এক গৃহবধূকে হত্যার ঘটনায় ৫ লাখ টাকায় রফাদফা..! গলাচিপায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ৫ম শ্রেণির সমাপনী/১৯ শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত ডুবোচরে আটকে যাওয়ার ভয়ে তিন ঘণ্টা আগেই ছেড়ে যায় লঞ্চ

বরগুনার বেতাগীর একজন কৃতিসন্তান : সরকারের অতিরিক্ত সচিব শ্যামল চন্দ্র কর্মকার

আপডেট: নভেম্বর ৮, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বেতাগী (বরগুনা ) প্রতিনিধি :

বরগুনার বেতাগী উপজেলা সদরের এক সাংস্কৃতিক পরিবারের সন্তান, বেতাগী মডেল হাই স্কুল এবং বেতাগী কলেজের কৃতিছাত্র শ্যামল চন্দ্র কর্মকার গত ২৩ অক্টোবর সরকারের অতিরিক্ত সচিব হিসেবে পদোন্নতি পেয়েছেন।

মৎস্য প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে বর্তমানে তিনি অত্যন্ত দক্ষতা, সততা ও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করছেন। শ্যামল চন্দ্র কর্মকার এর জন্ম ১৯৬৪ সালে বেতাগীতে। শৈশব থেকেই তিনি সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করেন।তাঁর প্রয়াত পিতা স্বর্গীয় প্রমথ নাথ কর্মকার ছিলেন একজন সংগীতানুরাগী সজ্জন মানুষ। বেতাগীতে এক সময় স্থানীয় নবীন প্রবীন কিছু প্রতিভাবান মানুষের অংশগ্রহণে প্রতিবছর নাটক থিয়েটারের আয়োজন হত।

শ্যামল কর্মকার সে সব নাটকে ছোটদের চরিত্রে অভিনয় করতেন। স্কুল কলেজের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় একাধিক পুরস্কারও পেতেন। তিনি বেতাগীর একজন অত্যন্ত ভাল মানের ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় ছিলেন। ১৯৭৯ সালে বেতাগী মডেল হাই স্কুল থেকে কৃতিত্বের সাথে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হবার পর তিনি ভর্তি হন বেতাগী কলেজে এবং এ প্রতিষ্ঠান থেকেও তিনি প্রথম বিভাগে এইচ এস সি পাশ করেন। পরবর্তিতে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পান এবং সেখানে অর্থনীতিতে সম্মানসহ মাস্টার্স সম্পন্ন করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক দল, লোক নাট্যদল, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট এবং গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সাথে নিবিড়ভাবে সম্পৃক্ত ছিলেন। সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে অবদানের জন্য তিনি ১৯৮৭ সালের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পদকএ ভূষিত হন। জগন্নাথ হল ছাত্র সংসদেও তিনি নির্বাচিত সাংস্কৃতিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

নবম বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ১৯৯১ সালে তিনি সিভিল সার্ভিসে প্রবেশ করেন। ২০১০ সালে তিনি উপসচিব এবং ২০১৫ সালে যুগ্মসচিব হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন এবং একাধারে ৫ বছর বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সচিবের দায়িত্বপালন করেন। ব্যাক্তি জীবনে শ্যামল চন্দ্র কর্মকার এর স্ত্রী শিলা কর্মকার একজন গৃহিনী এবং তিন পুত্র বিশ্ব বিদ্যালয় ও স্কুলে অধ্যয়ন করছে।
শ্যামল চন্দ্র কর্মকার সবসময়ই বেতাগীর মানুষের জন্য সাধ্যমত কিছু করার চেষ্টা করেন। তিনি বেতাগীবাসীর গৌরব।

অতিরিক্ত সচিব হিসেবে পদোন্নতি লাভ করায় শ্যামল চন্দ্র কর্মকার সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি এবং বেতাগীর আপামর মানুষের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশাল খবর ২৪ প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।