১৭ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং, শুক্রবার

বীরমুক্তিযোদ্ধাদের নামের ফলক উন্মোচন

আপডেট: আগস্ট ২০, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
গলাচিপা উপজেলার পানপট্টিতে পাক হানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুকযুদ্ধে অংশগ্রহনকারী ৪০ জন বীরমুক্তিযোদ্ধাদের নামের ফলক আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রধান অতিথি হিসেবে উন্মোচন করেন গলাচিপা-দশমিনার মাননীয় সংসদ সদস্য এস.এম শাহজাদা। ১৯৭১ সালের ১৮ নভেম্বর পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে বর্তমান বাংলাদেশ প্রধান নির্বাচন কমিশনার জনাব কে.এম নুরুল হুদা, যুদ্ধকালীন কমান্ডারের নেতৃত্বে এবং বীরমুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা টিটো ও খোকনসহ প্রায় ৪০ জন বীরমুক্তিযোদ্ধারা গলাচিপা উপজেলার পানপট্টি সেন্টার এলাকায় পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সম্মুকযুদ্ধে যুদ্ধ করে পাক হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে এবং গলাচিপা থানাকে শত্রুমুক্ত করে বিজয় লাভ করেন। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় পানপট্টি মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তভে নামের ফলক উন্মোচনে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন গলাচিপা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মু. শাহিন শাহ, আ.লীগ সভাপতি অধ্যাপক সন্তোস কুমার দে, আ.লীগ এর সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ও পানপট্টি রনাঙ্গণের স্থানীয় গাইডম্যান গোলাম মোস্তফা টিটো, যুদ্ধপরবর্তী সময় মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও আ.লীগের উপদেষ্টা সদস্য কালাম মো. ইসা, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যন মো. নিজাম উদ্দিন মোল্লা, আ.লীগের সহ-সভাপতি হাজী মজিবর রহমান, গলাচিপা আ.লীগের অন্যতম নেতা মাইনুল ইসলাম রনো, পানপট্টি ইউনিয়ন আ.লীগ সভাপতি মো. কুদ্দুছ মেলকার, চিকনিকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান সাজ্জাদ হোসেন রিয়াদ। ফলক উন্মোচন শেষে পানপট্টি ইউনিয়ন আ.লীগের উদ্যোগে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু ও জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে এক আলোচনা সভা ও কাঙালীদের মাঝে খাবার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়। পরে মাননীয় সংসদ সদস্য পানপট্টি লঞ্চঘাটের নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময়ে ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম তার ইউনিয়নের সার্বিক নানাবিধ সমস্যা নিয়ে এমপি মহোদয়ের সাথে মতবিনিময় করেন।

Print Friendly, PDF & Email
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশাল খবর ২৪ প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।