১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, মঙ্গলবার

শিরোনাম
রাঙ্গাবালীতে স্কুল ছাত্রীর লাশ উদ্ধার গলাচিপা উপজেলার শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষিকা নির্বাচিত হলেন মনিরা সুলতানা মুন্নি ঘুর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে বাউফলে শতাধিক ঘরবাড়ি বিধবস্ত অবশেষে বুলবুল’র কবলে পড়া নিখোঁজ গলাচিপার ১২ জেলের সন্ধান পেলো পরিবার গলাচিপায় ভাইয়ের প্রতিপক্ষ ভাই গলাচিপার গোলখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক পদে মনোনয়ন দাখিল করলেন নুর আলম জিকু ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে গলাচিপায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি গলাচিপা উপজেলার সকল ইউপি চেয়ারম্যানদের ঘূর্ণিঝড় “বুলবুল’”এর ক্ষয়-ক্ষতি কমাতে ও সতর্কীমূলক সকল ব্যবস্থা গ্রহণ এর নির্দেশ দিয়েছেন-মু.শাহীন শাহ্‌ ঘূর্ণিঝড় ”বুলবুল” মোকাবেলায় পটুয়াখালীতে ৬৮৯টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত, ১ লাখ ৬৫ হাজার মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে

গলাচিপায় ঈদকে সামনে রেখে কদর বেড়েছে তেঁতুল গাছের খাটিয়ার

আপডেট: আগস্ট ১১, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা, পটুয়াখালী
ঈদ- উল আযহাকে সামনে রেখে গলাচিপায় সর্বত্রই কদর বেড়েছে তেতুল গাছের তৈরী খাটিয়ার। প্রতিবছর কোরবানী এলেই কদর বাড়ে খাটিয়ার। তাই ঈদে আগের দিন ব্যবসায়ীরাও কড়া দামে তেতুল গাছের তৈরী এ খাটিয়া বিক্রি করেছেন। সূত্রমতে ঈদ উল আযহায় পশু কোরবানী করার পরে মাংস ছাটাই টুকরা করার জন্য প্রয়োজন হয় খাটিয়ার। যাতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাংস ভালভাবে ছাটাই করা যায়। সব গাছ দিয়ে খাটিয়া তৈরী করা যায় না। খাটিয়া তৈরী করতে প্রয়োজন হয় তেতুল গাছের।

এ গাছ ছাড়া অন্য গাছ দিয়ে খাটিয় তৈরী করলে মাংসের সাথে গাছের গুড়ি উঠে মাংসের মান নষ্ট হয়ে যায়। তাই ঈদ উল আযহা আসলেই তেতুল গাছের চাহিদা বেড়ে যায়। সূত্রে আরও জানা গেছে কাঠ ব্যবসায়ীরা গ্রামের বিভিন্ন এলাকা থেকে তেতুল গাছ সংগ্রহ করে স্ব- মিলে খন্ড খন্ড করে খাটিয়া তৈরী করে থাকেন। গলাচিপার এক খাটিয়া ব্যবসায়ী জানান, তেতুল গাছ দিয়ে তৈরী করা খাটিয়া চাহিদা অনেক্ ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী ছোট , মাঝারি ও বড় তিন ধরনের খাটিয়া রয়েছে।

একটি ছোট খাটিয়া ৩ শত টাকা, মাঝারি ৪ শত টাকা আর বড় ধরনের খাটিয়া ৫-৬ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। কাঠ ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন জানান, গত কয়েক বছর থেকে গ্রাম গঞ্জে তেতুল গাছ পাওয়া বড়ই দুস্কর হয়ে উঠেছে। যাওবা পাওয়া যায় তা চড়া দামে কিনতে হ্েচ্ছ। ফলে তেতুল গাছ দিয়ে তৈরী করা খাটিয়ার দামও পূর্বের চেয়ে একটু বেশি নেওয়া হচ্ছে। স্ব মিলের শ্রমিক আবুল বাশার জানান কাঠ ব্যবসায়ীরা এক সিএফটি তেতুল গাছ ৩ শত টাকা করে ক্রয় করেন। ঐ এক সিএফটি গাছে বড় ছোট ও মাঝারি মিলিয়ে কমপক্ষে ৪ টি খাটিয়া তৈরী করা যায়। যা কম হলেও ১ হাজার টাকা থেকে ১২ শত টাকা বিক্রি করা যায়। এতে কাঠ ব্যবসায়ীরা ভাল লাভবান হচ্ছেন।

Print Friendly, PDF & Email
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশাল খবর ২৪ প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।