১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, মঙ্গলবার

শিরোনাম
রাঙ্গাবালীতে স্কুল ছাত্রীর লাশ উদ্ধার গলাচিপা উপজেলার শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষিকা নির্বাচিত হলেন মনিরা সুলতানা মুন্নি ঘুর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে বাউফলে শতাধিক ঘরবাড়ি বিধবস্ত অবশেষে বুলবুল’র কবলে পড়া নিখোঁজ গলাচিপার ১২ জেলের সন্ধান পেলো পরিবার গলাচিপায় ভাইয়ের প্রতিপক্ষ ভাই গলাচিপার গোলখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক পদে মনোনয়ন দাখিল করলেন নুর আলম জিকু ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে গলাচিপায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি গলাচিপা উপজেলার সকল ইউপি চেয়ারম্যানদের ঘূর্ণিঝড় “বুলবুল’”এর ক্ষয়-ক্ষতি কমাতে ও সতর্কীমূলক সকল ব্যবস্থা গ্রহণ এর নির্দেশ দিয়েছেন-মু.শাহীন শাহ্‌ ঘূর্ণিঝড় ”বুলবুল” মোকাবেলায় পটুয়াখালীতে ৬৮৯টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত, ১ লাখ ৬৫ হাজার মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে

নয়ন বন্ডকে ডিভোর্স না দিয়েই রিফাতকে বিয়ে করে মিন্নি

আপডেট: জুন ২৮, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরগুনায় স্ত্রীর সামনে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী মিন্নির সঙ্গে প্রধান অভিযুক্ত সাব্বির হোসেন নয়ন ওরফে নয়ন বন্ডের বিয়ে হয়েছিল। তাদের বিয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কাজী মো. আনিসুর রহমান ভূঁইয়া। তিনি বরগুনা পৌরসভার ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের নিকাহ রেজিস্টার। বরগুনা পৌরসভার ডিকেপি রোডের কেজি স্কুল নামক স্ট্যান্ডে তার অফিস।

নয়ন বন্ডের ও আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির বিয়ের প্রথম স্বাক্ষী রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের দ্বিতীয় আসামি রাকিবুল হাসান রিফাত ওরফে রিফাত ফরাজি। গত বছরের ১৫ অক্টোবর আছরের নামাজের পর তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ের দেনমোহর হয়েছিল ৫ লাখ টাকা। তবে দেনমোহরের কোনো নগদ পরিশোধ ছিল না।

কাজী মো. আনিসুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, বিয়ে করার জন্য নয়ন ও মিন্নিসহ ১৫ থেকে ২০ জন লোক আসে আমার অফিসে। এসময় নয়ন ও মিন্নি তাদের ১৮ বছর পূর্ণ হওয়ার প্রমাণস্বরূপ এসএসসি পরীক্ষার সার্টিফিকেট নিয়ে আসে। এরপর আমি মেয়ের বাবার সঙ্গে কথা জানতে চাইলে তারা বলে, মেয়ের বাবা আসবে না, আপনি মেয়ের মায়ের সঙ্গে কথা বলেন। এরপর মিন্নির মা পরিচয়ে একজন আমার সঙ্গে ফোনে কথা বলেন।

তিনি আমাকে বলেন, বিয়ের বিষয়টি আমরাতো জানি। মিন্নির বাবা বিয়েটা এখন মানবে না। আপনি বিয়ে সম্পন্ন করেন। বিয়ের কিছুদিন পর ঠিকই মেনে নেবেন। এরপর আমি পাঁচ লাখ টাকা দেনমোহরে নয়ন ও মিন্নির বিয়ে সম্পন্ন করি। এ বিয়ের উকিল ছিলেন শাওন নামের একজন। শাওন ডিকেপি রোডের মো. জালাল আহমেদের ছেলে।

মিন্নি ও নয়ন বন্ডের মধ্যে ডিভোর্সের কোন তথ্য জানাতে পারেননি এই কাজী। সে কারণে ধারণা করা হচ্ছে, দুইজনকে বিয়ে করে মিন্নি একজনের সাথে ঘর করায় কোন্দলের শুরু হয়।

অথচ এর আগে মিন্নি বলেন, আমার বিয়ে হয়েছে একমাত্র রিফাত শরীফের সঙ্গে। এছাড়া আর কখনো কারও সঙ্গে বিয়ে হয়নি। যেহেতু বিয়েই হয়নি, ডিভোর্স হওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না। রিফাতই আমার স্বামী এবং এটাই সত্য। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটাই দাবি করি, যারা আমার স্বামীকে হত্যা করেছে আমি তাদের ফাঁসি চাই।

সূত্র: জাগোনিউজ

Print Friendly, PDF & Email
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশাল খবর ২৪ প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।