,
প্রচ্ছদ | বরিশাল | অনলাইন সংবাদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | রাজনীতি | খেলাধুলা | সাহিত্য | এক্সক্লুসিভ | ফ্রেন্ডস ফর লাইফ সংবাদ | সিটিজেন জার্নালিস্ট সংবাদ | সম্পাদকীয় |

পটুয়াখালী ৪টি সংসদীয় আসনের প্রচারণা শেষ

রানা,পটুয়াখালী, প্রতিনিধি : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু হয় ১১ ডিসেম্বর থেকে। টানা ১৬ দিন নির্বাচনী প্রচারণা চলার পর বৃহস্পতিবার (২৭ ডিসেম্বর) রাত ১২টায় শেষ হয়েছে নির্বাচনী প্রচারণা ।

এই ১৬ দিনে বিভিন্ন দলের ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নানা ভাবে প্রচারণা চালিয়ে গেছেন ভোটারদের আকৃষ্ট করতে। এই প্রচারণার মাধ্যমে কে কত বেশি ভোটারদের কাছে পৌঁছাতে পেরেছেন এর ফলাফল পাওয়া যাবে ৩০ ডিসেম্বর।

অন্যদিকে এবার নির্বাচনী প্রচারণায় ছিল নতুনত্বের ছোঁয়া। এবারই প্রথম ডিজিটাল পদ্ধতি ব্যবহার করে ভোট চেয়েছেন প্রার্থীরা। যা আগে কখনোই বাংলাদেশের নির্বাচনে দেখা যায়নি। যদিও এ ডিজিটাল প্রচারণায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগই সব থেকে বেশি সরব ছিল। তবে বিএনপিসহ অন্যান্য দলের প্রার্থীরাও এবার ডিজিটাল প্রচারণা চালিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ‘জয় বাংলা, জিতবে এবার নৌকা’ এই নামে একটি গান বানিয়ে সারা দেশে প্রচারণা চালানো হয়েছে। অন্যদিকে ছোট ছোট ভিডিও বানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেও দলটির পক্ষ থেকে প্রচারণা চালানো হয়। তবে পটুয়াখালী ৩ আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী রনির ফোন আলাপ ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে ।

অন্যদিকে শুরু থেকে একপেশে অবস্থার মধ্যে দিয়ে শেষ হতে যাচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচারণা। সরকারি দল আওয়ামী লীগ ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ছাড়া আর কোনো দলকেই নির্বাচনী প্রচারণায় তেমন সরব দেখা যায়নি। অবশ্য এ বিষয় নিয়ে নানা অভিযোগ ও তর্ক-বিতর্ক রয়েছে।

দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করলে দেখা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ তথা মহাজোটের প্রধান বিরোধী জোট হচ্ছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে বিএনপি থাকায় ভোটের মাঠে প্রভাবও রয়েছে তাদের।

কিন্তু আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু হবার পর বার বার নির্বাচন কমিশনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা অভিযোগ করেছেন লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই মাঠে। তাদের প্রার্থী ও কর্মীদের কোনো ধরনের প্রচারণা চালাতে দিচ্ছে না আওয়ামী লীগ। তারা পোস্টার ব্যানার লাগালে সরকারি দলের লোকজন গিয়ে তা ছিঁড়ে ফেলে দিয়েছে বলেও অভিযোগ ওঠে।

এ বিষয়ে পটুয়াখালী- ১ আসনের বিএনপির সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরী  একাধিক সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে বলেছেন, হামলা মামলার মাধ্যমে বিএনপির নেতাকর্মীদের কোনো প্রচারণা চালাতে দিচ্ছে না আওয়ামী লীগ। নেতাকর্মীরা নিজ এলাকায় পর্যন্ত থাকতে পারছে না।

যদিও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিএনপির এসব অভিযোগ বরাবর অস্বীকার করা হয়েছে। দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়, প্রচারণা চালানোর জন্য বিএনপির কোনো ধরনের সাংগঠনিক শক্তি নেই। তাই তারা মাঠে নেই। এছাড়া তারা সরকারি দলকে চাপে রাখার জন্য অনেক জায়গায় ইচ্ছা করে প্রচারণা চালায়নি।

এবারো দেশে অনুষ্ঠিত অন্য সকল জাতীয় নির্বাচনের মতো প্রচারণা চলাকালে সহিংস পরিবেশ দেখা গেছে পটুয়াখালী ৩ দশমিনাও ৪ রাঙাবালী ।  আওয়ামী লীগ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হওয়ার পর থেকে তাদের একাধিক নেতাকর্মী আহত  হয়েছে বিরোধী দলের হামলায়। অন্যদিকে বিএনপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে প্রচারণা শুরু থেকে বিভিন্ন জায়গায় তাদের নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে ।

কিন্তু প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা তার এক বক্তব্যের প্রতিবাদ করে বলছেন, ‘দেশে সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশ বিরাজ করছে। কোথাও কোনোভাবে নির্বাচনী পরিবেশ বিঘ্ন হওয়ার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি।’

সর্বোপরি ভোটাররা প্রচারণার শুরু থেকেই উত্তপ্ত এক রাজনৈতিক পরিবেশ প্রত্যক্ষ করছেন। যা দেশের কোনো ভোটারই দেখতে চান না।

৪টি সংসদীয় আসনের মধ্যে পটুয়াখালী- ১[১১১](পটুয়াখালী সদর, মির্জাগঞ্জ ও দুমকি )।পটুয়াখালী -২ [১১২](বাউফল)।পটুয়াখালী-৩[১১৩](গলাচিপা -দশমিনা )।পটুয়াখালী-৪[১১৪](কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী )।

মোট ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৯২ হাজার ৫৮২ জন ।এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ লাখ ৯৬ হাজার ৩৪৭ জন।নারী ভোটার ৫ লাখ ৯৬ হাজার ২৩৫জন এবং নুতন ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৬৮ হাজার ৮০৩জন।

পটুয়াখালী-১ (সদর-মির্জাগঞ্জ-দুমকী) আসন থেকে আওয়ামী লীগের মো. শাহজাহান মিয়াকে নৌকা, বিএনপি প্রার্থী আলতাফ হোসেন চৌধুরীকে ধানের শীষ, কমিউনিস্ট পার্টির মোতালেব মোল্লাকে কাচি, ইসলামী আন্দোলনের আলতাফুর রহমানকে হাতপাখা, জাকের পার্টির মো. আবদুর রশিদকে গোলাপ ও এনপিপির সুমন সন্নামতকে আম প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ।

পটুয়াখালী-২ (বাউফল) আসনে থেকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আ.স.ম ফিরোজকে নৌকা, বিএনপি প্রার্থী সালমা আলমকে ধানের র্শীষ, ইসলামী আন্দোলনের নজরুল ইসলামকে হাতপাখা এবং কমিউনিস্টপার্টির মো. সাহাবুদ্দিনকে কাচি প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ।

পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আসন থেকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এসএম শাহজাদা সাজুকে নৌকা, বিএনপির গোলাম মাওলা রনিকে ধানের শীষ, জাতীয়পার্টির সাইফুল ইসলামকে লাঙ্গল ও ইসলামী আন্দোলনের ডা. মো. কামাল হোসেনকে হাতপাখা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ।

পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসন থেকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মহিবুল্লাহ মুহিবকে নৌকা, বিএনপির এবিএম মোশাররফ হোসেনকে ধানের র্শীষ, ইসলামী আন্দোলনের হাবিবুর রহমানকে হাতপাখা, জাতীয়পার্টির আনোয়ার হোসেন হাওলাদারকে লাঙ্গল, বাসদের মো. জহিরুল আলমকে মই ও ইসলামী ঐক্যজোটের আ. রহমান শাহ আলম মিনারকে প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ।

ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নির্বাচনী প্রচারণার সময় রাজনৈতিক দলগুলো উৎসব আমেজপূর্ণ একটি পরিবেশ সৃষ্টি করতে ব্যর্থ হয়েছে। তারা এখন চান ভোটের দিন বা নির্বাচনের বাকি দিনগুলো যেন আমেজ ও উৎসবমুখর থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রচ্ছদ | বরিশাল | অনলাইন সংবাদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | রাজনীতি | খেলাধুলা | সাহিত্য | এক্সক্লুসিভ | ফ্রেন্ডস ফর লাইফ সংবাদ | সিটিজেন জার্নালিস্ট সংবাদ | সম্পাদকীয় |

উপদেষ্টা মন্ডলী

প্রধান উপদেষ্টা : শাহ্ সাজেদা ।
উপদেষ্টা সম্পাদক : সৈয়দ এহছান আলী রনি ।
সহকারী সম্পাদক: খন্দকার মুন্না ।
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: এফ.এম. আসাদুজ্জামান (আসলাম) ।
বার্তা সম্পাদক : মোঃ নাজমুল হক ।
সম্পাদক ও প্রকাশক: মামুনুর রশীদ নোমানী ।

যোগাযোগ

সকল প্রকার যোগাযোগ: লুকাস কম্পাউন্ড,সদর রোড,বরিশাল ।

ইমেইল: nomanibsl@gmail.com

মোবাইল : 01839970603

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপিংঃ ইঞ্জিনিয়ার বিডি নেটওয়ার্ক

Design & Developed BY EngineerBD